করোনার পর অর্থনীতিতে যুক্তরাষ্ট্রকে টপকাতে পারে চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

মহামারিতে ধুঁকছে বিশ্ব অর্থনীতি। অধিকাংশ দেশের জিডিপি (মোট দেশজ উৎপাদন) প্রবৃদ্ধি ঋণাত্মক কিংবা সংকুচিত। করোনা সংকট কাটিয়ে বিশ্ব অর্থনীতিতে চীনের প্রভাব আরও বাড়বে। বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহৎ অর্থনীতির দেশ চীন টপকাতে পারে যুক্তরাষ্ট্রকেও। এমন পূর্বাভাস আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল আইএমএফের।

আইমএমএফের পূর্বাভাস অনুযায়ী, ২০২১ সালে বিশ্ব অর্থনীতিতে চীনের অবদান বেড়ে হবে ২৬.৮ শতাংশ। ২০২৫ সালে তা বেড়ে হতে পারে ২৭.৭ শতাংশ। ফলে বিশ্ব অর্থনীতিতে দেশভিত্তিক অবদানের নিরিখে যুক্তরাষ্ট্রকে টপকে শীর্ষে উঠে যাবে চীন। আগামী বছর শীর্ষ পাঁচে থাকবে ভারত, জার্মানি ও ইন্দোনেশিয়া।

এই পরিস্থিতিতেই বিশ্ব অর্থনীতির আগামী রূপরেখা কেমন হতে পারে, তার একটা আগাম চিত্র তুলে ধরেছে আইএমএফ। বর্তমানে ক্রয়ক্ষমতার নিরিখে বিশ্ব অর্থনীতিতে যুক্তরাষ্ট্রের অবদান সবচেয়ে বেশি— ২৩ শতাংশেরও বেশি। সেখানে চীনের অবদান ১৫ দশমিক ৫ শতাংশের মতো।

২০২৫ সালের যে অর্থনৈতিক চিত্র আইএমএফ প্রকাশ করেছে, সেই তথ্য নিয়ে মার্কিন সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গের প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, ২০২৫ সালে চীনের সেই অবদান বেড়ে হতে পারে ২৭.৭ শতাংশ। যুক্তরাষ্ট্রের তা কমে ১০.৪ শতাংশে নামতে পারে। ১৩ শতাংশ অবদান নিয়ে তালিকার দ্বিতীয় স্থানে থাকতে পারে ভারত।

আইএমএফ এর আগের পূর্বাভাসে জানিয়েছিল, চলতি অর্থবছর বিশ্ব অর্থনীতির সংকোচন হতে পারে ৪.৯ শতাংশ। কিন্তু সাম্প্রতিক পূর্বাভাসে এই সংকোচন কিছুটা কমে ৪.৪ শতাংশ হতে পারে বলে জানানো হয়েছে। সংস্থাটি বলছে, আগামী অর্থবছর কোভিড-পরবর্তী বিশ্বের প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৫.২ শতাংশ।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *