সাতক্ষীরায় সম্পত্তি জবর দখল করার পায়তারা ও জীবননাশের হুমকির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

জাহিদ হাসান, (সাতক্ষীরা) :

গত রবিবার সন্ধ্যায় সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন। সাতক্ষীরা কালিগঞ্জ উপজেলার নলতা ইউনিয়নের শিবপুর গ্রামের হরেন চন্দ্র দাশের পুত্র গোপাল চন্দ্র দাশ তিনি তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, আমার পিতা হরেন চন্দ্র দাশ ও কাকা সুনিল চন্দ্র দাশ ও অনিল চন্দ্র দাশ। পৈত্রিক সূত্রে মৌজা নলতা এস.এ খতিয়া নং-১০১৮ সাবেক ৬৫৫ দাগে ১২ শতক জমির মালিক এবং আমার বড় কাকা কেনারাম চন্দ্র দাশ একই মৌজার একই খতিয়ানে একই দাগে ১৫ শতক জমি একই গ্রামের লিচু বালা ঘোষের নিকট থেকে ১৯৮১ সালে কোবালা দলিলের মাধ্যমে খরিদ করে। ৬৫৫ দাগের ১২ শতক জমি লিচু বালা ঘোষ ১৯৮১ সালে নগেন্দ্র চন্দ্র দাশের নিকট বিক্রয় করেন। উক্ত জমি নগেন্দ্র দাশ কালিপদ দাসের নিকট ১৯৮৫ সালে বিক্রি করেন। উক্ত ৬৫৫ দাগের ১২ শতক জমি ১৯৮৫ সাল থেকে অদ্যাবধি কালিপদ দাশের সন্তানেরা ভোগ দখল করে আসছে। কিন্তু বর্তমানে ৬৫৫ দাগের ১২ শতক জমি নগেন্দ্র চন্দ্র দাশের ৪ পুত্র অনিল চন্দ্র দাশ, উত্তম চন্দ্র দাশ, ধনু চন্দ্র দাশ ও মৃত্যুঞ্জয় চন্দ্র দাশ এবং নগেন্দ্র চন্দ্র দাশের ভাই পরসম্পদ লোভী ভূমি দস্যু গৌরচন্দ্র দাশের পুত্রদ্বয় দুলাল চন্দ্র দাশ ও প্রদীপ চন্দ্র দাশ জোর পূর্বক সম্পূর্ণ জমি দখল করে নিয়েছে। ৬৫৫ দাগের ১৫ শতক জমি লিচু বালা ঘোষের নিকট থেকে ১৯৮১ সালে কেনারাম চন্দ্র দাশ খরিদ করেন। তার মধ্য থেকেও ৩ শতক জমি নগেন্দ্র দাশের চারপুত্র ও গৌর চন্দ্র দাশের দুই পুত্র জোরপূর্বক দখল করে নিয়েছে। এ বিষয়ে আমরা বিভিন্ন জায়গায় বিচার চেয়ে কোন প্রতিকার না পেয়ে নিরুপায় হয়ে বাকী ১২ শতক জমি সে সময় থেকে চাষাবাদ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলাম। গত কিছু দিন পূর্বে উল্লিখিত ভূমি দস্যুরা আমাদের খুন জখম করিবে বিভিন্ন ভয় ভীতি দেখিয়ে সেই ১২ শতক জমি দখল করে নেয়। আমরা কোন উপায়ান্ত না পেয়ে স্থানীয় স্থানীয় ৬নং নলতা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান পাড়ের নিকট একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। চেয়ারম্যান কাগজপত্র এবং সাক্ষী প্রমাণসহ উভয় পক্ষকে ইউনিয়ন পরিষদে হাজির হওয়ার জন্য নোটিশ প্রদান করেন। কিন্তু বিবাদী পক্ষ বিভিন্ন ছল চাতুরীর আশ্রয় নিয়ে টালবাহানা করতে চেয়ারম্যান গত ০৬/০২/২০২১ ইং তারিখে বিবাদীদের স্বপক্ষে গ্রহণযোগ্য কোন কাগজপত্র, সাক্ষী প্রমাণ দেখাতে ব্যর্থ হলে চেয়ারম্যান উল্লিখত ১৫ শতক জমি আমাদের অনুকূলে ছেড়ে দিতে বললে বিবাদীপক্ষদ্বয়সহ তাদের পুত্রগণ বলেন আমরা এ বিচার মানি না বলে আস্ফালন করতে থাকে এবং চেয়ারম্যানের সম্মুখে আমাদের মারধর করতে থাকে। চেয়ারম্যান উক্ত জমির বিষয়ে সমস্ত কাগজপত্র দেখে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার কারণে বিবাদীপক্ষদ্বয় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন প্রকার কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য প্রকাশ করছে এবং বিবাদীপক্ষগণ এতোটাই সন্ত্রাসী ও হিংস্র প্রকৃতির ব্যক্তি যে, আমাদেরকে অনেকবার মারধর করেছে এবং আমাদেরকে জীবননাশের হুমকি, বসত বাড়ীতে মাদক দ্রব্য ও অবৈধ অস্ত্র রেখে আমাদেরকে পুলিশ দ্বারা হয়রানি করবে বলে প্রকাশ্যে হুমকি দিচ্ছে। আমরা যাতে আমাদের বাবা কাকার পৈত্রিক সম্পত্তি রক্ষা করে, জমিতে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস ও চাষাবাদ করে জীবন জীবিকা নির্বাহ করতে পারি সে ব্যাপারে আপনাদের লেখনির মাধ্যমে বিবাদীপক্ষদ্বয়ের যাতে কঠোর শাস্তি পায়, সে জন্য প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছি।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *